হার্ট এটাক, ভুল ধারনা নিয়ে আমরা…৩য় পর্ব

On This Post

আপনি জানেন কি?

সারাবিশ্বে প্রতি বছর, সবচেয়ে বেশী মানুষের মৃত্যু হয় কোন অসুখে?

উত্তর হলো, হার্ট এবং রক্তনালির অসুখে

আরো নির্দিষ্ট করে বললে,

হার্ট এটাকে…!!!”

প্রাণঘাতী এই রোগ নিয়ে, প্রচলিত ভুল ধারনা গুলোর ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধিই আজকের লিখার উদ্দেশ্য

৩য় পর্বে থাকছে, হার্ট এটাকের লক্ষন গুলো নিয়ে প্রচলিত ভুল ধারনা গুলোর ব্যাপারে তথ্য।

ভুল ধারনা-১। “হার্ট এটাক হলে বুকে ব্যাথা হবেই…”

সাইলেন্ট হার্ট এটাক বলে একটা ব্যাপার আছে, শুনেছেন কি?  কোনো দৃশ্যমান লক্ষণ ছাড়া ও যে হার্ট এটাক হতে পারে প্রথমেই এটা মাথায় নিয়ে নিন। চোয়ালে ব্যাথা, শুধু মাত্র এই একটি  উপসর্গ ও যে হতে পারে হার্ট এটাকের লক্ষণ, আপনার জানা আছে কি? হার্ট এটাকের ব্যাথার ধরনটা সাধারনত এমন, যে, বুকের মাঝখানে শুরু হওয়া তীক্ষ্ণ, ছুরিকাঘাতের মতো প্রচন্ড ব্যাথা, যা অল্প পরিশ্রমে বেড়ে যায়, তখন বিশ্রাম নিলে কমে না, ঘাড়, চোয়াল বা বাহুতে  ছড়িয়ে পড়ে, সাথে ঘেমে যাওয়া এবং শ্বাসকষ্ট। শুধুমাত্র ঘাড়, চোয়াল, কাধ বা বাহু, এসব জায়গায় ব্যাথা, হার্ট এটাকের লক্ষণ প্রকাশ পেতে পারে এভাবে ও। ভোতা ধরনের বুকে ব্যাথা, দমবন্ধ ভাব, বুকে ভার ভার লাগা, এগুলো ও হতে পারে হার্ট এটাক জনিত ব্যাথা। রোগীরা প্রায়শই ব্যাথার ধরন বুঝাতে গিয়ে জোর দিয়ে থাকেন,  যে এটি ব্যথার চেয়ে অস্বস্তি বেশী। তাই হার্ট এটাক হতে হলে অবশ্যই বুকে ব্যাথা হবে, এটা ধারনা ঠিক নয়।

সব ধরনের ওষুধের হোম ডেলিভারী পেতেঃ Order Now

ভুল ধারনা-২। “প্রায় সময়ই বুকে ব্যাথা হচ্ছে, কিছুক্ষন রেষ্ট নিলে, গ্যাষ্ট্রিকের ওষুধ খেলে কখনো কখনো কমে যায়, এটা গ্যাষ্ট্রিকজনিত ব্যাথাই, ডাক্তার দেখানোর মতো কিছু নয়…”

উপরের লিখা থেকে এতোক্ষণে নিশ্চয়ই বুঝে নিয়েছেন, হার্ট এটাকের লক্ষণ বিভিন্নভাবে প্রকাশ পেতে পারে। যে ব্যাথাকে গ্যাষ্ট্রিকের ব্যাথা ভাবছেন, তা গ্যাষ্ট্রিকের না হয়ে হার্ট এটাকের নয়, এটা নিশ্চিত ভাবে ডাক্তার না দেখালে বুঝা সম্ভব? এমন লক্ষন আপনার থাকলে, দ্রুতো ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

ভুল ধারনা-৩। “ইদানীং হাটতে গেলে কিছু সমস্যা হচ্ছে, অল্প হাটলেই ক্লান্ত লাগছে, অল্প অল্প ঘাম  হচ্ছে, শ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছে, বসে কিছুক্ষণ বিশ্রাম না নিলে তখন আর হাটাই যায় না…. আগে এমন হতো না…সম্ভবত বয়স বাড়ছে, তাই এমন লাগে…”

হার্টের প্রধান রক্তনালি গুলোর ব্লক যদি ৭০% বা তার বেশী হয়, হার্টএটাক জনিত লক্ষন গুলো প্রকাশ পাওয়া শুরু হয় তখনই, তার আগে সাধারণত লক্ষন প্রকাশ পায় না। এ পরিমান ব্লক হবার হবার সময়ে বা তার কিছু আগে, হার্ট তার সমস্যার কথা অল্প অল্প জানান দিতে থাকে। আপনার যে সমস্যা গুলো হচ্ছে, এগুলো হতে পারে হার্ট এটাকের প্রাথমিক লক্ষন। ঘরে বসে না থেকে দ্রুতো ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

ভুল ধারনা-৪। “বুক ধড়ফড় করছে, হার্টবিট বেশী, আমার হার্ট এটাক হতে যাচ্ছে…”

হার্টের নিয়মিত ছন্দে পাম্প করার ব্যাপারটি বিভিন্ন অসুখের কারনে অস্বাভাবিক রকম বেড়ে বা কমে যেতে পারে, যাকে মেডিকেলের ভাষায় বলা হয় কার্ডিয়াক এরিদমিয়া। সাধারণত বুক ধড়ফড় করা, হার্ট বিট বেড়ে যাওয়া, এ লক্ষন গুলো এরিদমিয়ার ক্ষেত্রে প্রকাশ পায়। হার্ট এটাকের কারনেও এরিদমিয়া হতে পারে, তবে জরুরি নয় যে সবসময় এ ধরনের লক্ষন গুলো হার্ট এটাক জনিত সমস্যাতেই হবে। এমন সমস্যা হতে পারে আরো অনেক অসুখের কারনেই। তাই এ ধরনের লক্ষন থাকলে দ্রুতোভিত্তিতে ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত।

লিখেছেনঃ

ডাঃ মোহাম্মদ শাকিলুজ্জামান

জেনারেল ফিজিশিয়ান

লেখক পরিচিতি

আজ পর্যন্তই, আগামীপর্বে থাকছে হার্ট এটাক হয়ে যাবার পরবর্তী সময়ে রোগীর জীবনযাত্রা  নিয়ে প্রচলিত ভুল ধারনা গুলোর  তথ্য।

তথ্যসুত্রঃ American Heart Association

আরো পড়ুনঃ

হার্ট এটাক, ভুল ধারনা নিয়ে আমরা…. ১ম পর্ব

হার্ট এটাক, ভুল ধারনা নিয়ে আমরা… ২য় পর্ব

আমাদের ডাক্তার এখানে লিখছেন প্রতিদিনই, নিয়মিত স্বাস্থ্য বিষয়ক আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক বা ফলো করুন

  • 56
    Shares
  • 56
    Shares

Offer, Discount, Cashback & Many More

X